issue_cover
x

বিষে বিষক্ষয়
আশাপূর্ণা দেবী

বেয়াল্লিশ রাত চোখে ঘুম আসেনি জগদীশ উকিলের। তাই করালী কবরেজের কাছে গিয়েছিলেন নিদান  জানতে। দোষের মধ্যে করালী শুধু বলেছেন, ব্যাধিটি সামান্য নয়। আয়ুর্বেদ শাস্ত্রে একেই বলে ‘অনিদ্রা ব্যাধি’। খারাপ কোনও কথাই নয়। কিন্তু না ঘুমিয়ে-ঘুমিয়েই বোধ হয় জগদীশ উকিলের মাথায় কিঞ্চিত্‌ গোলমাল দেখা দিয়েছে। না হলে কেন এই কথা শুনেই তিনি করালী কবরেজের নাকে কামড় বসাবেন। আর পাঁচজনের চেষ্টায় নাকটা বাঁচল বটে। কিন্তু জগদীশ উকিলের সমস্যা তো মিটল না। কী হবে তা হলে?

f
x
x

ডোডো তাতাই পালা কাহিনী
তারাপদ রায়

জানলার ওপারে রাস্তায় ফুটপাথের উপরে একটি সাদা কুকুর থুতনি রেখে অনিমেষ নয়নে ডোডোবাবুর দিকে তাকিয়ে রয়েছে। কুকুরটির নাম তুষারকণা, তার রঙ সম্পূর্ণ সাদা বলে এই নাম দেওয়া হয়েছে। ডোডোবাবুর হাতে দু’টো বিস্কুট রয়েছে, ভূগোল পড়তে-পড়তে বিস্কুট খাচ্ছেন। ডোডোবাবুর মা ডোডোবাবুকে ডাকলেন। ভূগোলের বইয়ের উপর বিস্কুটটুকু রেখে ডোডোবাবু জানলার উপরে বইটি ফেলে বাড়ির ভিতরে গেলেন। তুষারকণা নামের কুকুরটি তখন কী করল?

c

সুন্দরী
লীলা মজুমদার

জীবনময়ের চিঠি পেয়েই আমি, রতন আর অসীম আর তার বউ জয়া আর ওদের ছেলেমেয়ে ভুটানি আর বাবুয়া রওনা হয়ে পড়লুম। কিন্তু সেখানে যাওয়ার পর ঘটতে লাগল একটার পর-একটা অদ্ভুত কাণ্ড। ট্রেনে আসবার সময় বাবুয়া একটা বাঁশের বাঁশি কিনেছিল। এখানে খেলতে-খেলতে সেটা একবার একটা গাছতলায় রেখেছিল। আর খুঁজে পাচ্ছে না। সে বলছে, ভুটানি সেটা নিয়েছে। কিন্তু ভুটানি বলছে, সে মোটেই নেয়নি। তা হলে কী হল? কে নিল ওর বাঁশি? ওখানে কি কোনও ভূত আছে নাকি?

f
x
x

চোরে ডাকাতে
শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়

সিধু নামের চোরটি সব বাড়িতে যেত খবর করতে, কার বাড়িতে নতুন লোক এল, কী নতুন কাপড়চোপড় এল দোল দুর্গোত্‌সবে, কোন্ বাড়িতে টাকাপয়সার আমদানি আছে ইত্যাদি। খবর বুঝে রাত-বিরেতে হানা দিত সেই বাড়িতে। তার এমন সব মন্ত্র জানা ছিল যে, সেই মন্ত্রের জোরে বাড়ির সকলে নিঃসাড়ে ঘুমোতো, সিধু হাসতে-হাসতে চুরি করে নিয়ে যেত সব। এমনকী, যাওয়ার আগে গেরস্তর ঘরে বসে দু’ দণ্ড জিরিয়ে তামাকটামাক খেয়ে যেত। একদিন কী কাণ্ড ঘটল?

c

1 2 3 4 5 6 7 8 9 10 >