issue_cover
x

x পালটে যাবে পৃথিবীর মানচিত্র

আজ থেকে একশো বা দু’শো বছর পর পৃথিবীর মানচিত্র কি আজকের মতোই থাকবে? বিজ্ঞানীরা কিন্তু সে ভরসা একদমই দিচ্ছেন না। বরং তারা বলছেন, পৃথিবীর তাপমাত্রা ক্রমাগত বাড়তে থাকায় উত্তর এবং দক্ষিণ গোলার্ধের বরফ খুব তাড়াতাড়ি গলে যাচ্ছে। যার ফলে সমুদ্রের জল বাড়ছে। বাড়ছে সমুদ্রতলের উচ্চতা। একসময় তা বাড়তে-বাড়তে পৃথিবীর অনেক বড়-বড় শহরকে জলের তলায় ডুবিয়ে দেবে। কলকাতা, মুম্বই, ফ্লোরিডা, সিঙ্গাপুর, টোকিও, ব্রিসবেন, ঢাকা শহর সহ পশ্চিম ইউরোপের বহু দেশ তখন কেবল ইতিহাস হয়ে বেঁচে থাকবে। বাস্তবে তখন আর তাদের কোনও অস্তিত্ব থাকবে না। আগামী এক-দু’শো বছরের মধ্যেই ঘটতে পারে এমন ঘটনা। ১৯৯২ সাল থেকে মার্কিন এবং ফান্সের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা সমুদ্রতলের উচ্চতা বৃদ্ধি নিয়ে পরীক্ষা চালিয়ে আসছে। সম্প্রতি উত্তর গোলার্ধের গ্রিনল্যান্ডে বরফ গলার হালহকিকত জানা এবং বোঝার জন্য আলাদাভাবে ও এম জি (ওশান্‌স মেলটিং গ্রিনল্যান্ড) নামে এক গবেষণা সংস্থা গঠন করে নাসা। গ্রিনল্যান্ডের ১৭ লক্ষ বর্গমাইল এলাকা জুড়ে পরীক্ষা চালাচ্ছে এই সংস্থা। এখানে বরফের গভীরতা প্রায় ১.৬ কিলোমিটার। উপগ্রহ চিত্র এবং গ্রিনল্যান্ড ও অ্যান্টার্কটিকায় গবেষকদের পাওয়া তথ্য থেকে উঠে এসেছে এমনই ভয়ঙ্কর ভবিষ্যতের ছবি। বিজ্ঞানীরা জানাচ্ছেন, আগামী এক শতকে সমুদ্রতলের উচ্চতা সর্বোচ্চ তিন থেকে দশ ফুট পর্যন্ত বেড়ে যেতে পারে। আর তা হলে, পৃথিবীর স্থলভাগের চেহারাটাই বদলে যাবে।

প্রাচীন জীবাশ্ম


পৃথিবীর সবচেয়ে পুরনো জীবাশ্মের খোঁজ পাওয়া গিয়েছে বলে দাবি করেছেন বিজ্ঞানীরা। গত সাত বছর ধরে একটি জীবাশ্ম পরীক্ষা করছিলেন জার্মানির ফ্র্যাঙ্কফুর্টের জ়েনকেনবার্গ গবেষণা কেন্দ্রের বিজ্ঞানীরা। সম্প্রতি তাঁরাই একথা জানিয়েছেন। শখের জীবাশ্মবিজ্ঞানী মেরি পারা আর তার দুই ভাই জ়ুয়ান এবং ফ্রেডি পারা ২০০৭ সালে কলম্বিয়ায় এই জীবাশ্মটির সন্ধান পান। সাড়ে ছ’কোটি বছর আগেকার, পাথরের ভাঁজে থাকা এই জীবাশ্ম তখনই উদ্ধার হয়। দু’মিটার লম্বা এই জীবাশ্মটিকে তারপর নিয়ে আসা হয় ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের জীবাশ্ম মিউজ়িয়ামে। সেখানেই এতদিন এই জীবাশ্মের উপর পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলছিল। বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, এটি একটি সামুদ্রিক কচ্ছপের জীবাশ্ম এবং এযাবত্‌ খুঁজে পাওয়া জীবাশ্মদের মধ্যে সবচেয়ে প্রাচীন। যার বয়স প্রায় ১২ কোটি বছর। এর আগে ১৯৯৮ সালে ব্রাজ়িলে সবচেয়ে পুরনো জীবাশ্মের খোঁজ পেয়েছিলেন বিজ্ঞানীরা। সেটিও ছিল এক সামুদ্রিক কচ্ছপের। সাড়ে নয় কোটি বছর আগের সেই জীবাশ্মের নাম সান্থাঅ্যাশেলিস গ্যাফিনি।