issue_cover
x

প্রাণিজগত্‌
বাইকের পিছু ধাওয়া করল বাঘ! আর কত?

prani-jogot-4.7.2019-img1 কর্ণাটকের বন্দিপুরে অভয়ারণ্যের মাঝখান দিয়ে গিয়েছে ওয়ানাড-বন্দিপুর রোড। সম্প্রতি সেই রাস্তা ধরে বাইকে করে আশপাশের জঙ্গলের ছবি তুলতে-তুলতে যাচ্ছিলেন দুই যুবক। বাইকের পিছনে বসে যিনি ভিডিয়ো করতে-করতে যাচ্ছিলেন, তিনি হঠাৎই খেয়াল করেন, বাইকের পিছু-পিছু দৌড়ে তাঁদের ধাওয়া করেছে বড়সড় একটা ডোরাকাটা বাঘ! আতঙ্কে তিনি তাঁর সঙ্গীকে বাইক দ্রুত ছোটাতে বললে একসময় বাঘ পিছিয়ে পড়ে রণে ভঙ্গ দেয়। ফিরে যায় জঙ্গলের ভিতরে। যুবক দু’জন জোর বাঁচা বেঁচে গিয়েছেন, সন্দেহ নেই। কিন্তু ঘটনার ভিডিয়ো প্রকাশ্যে আসার পর নিন্দেয় সরব হয়েছেন দেশের পশুপ্রেমীরা। যে জঙ্গলকে অভয়ারণ্য হিসেবে গড়ে তোলা হয়েছে, তার মধ্য দিয়েও রাস্তা রাখার কী দরকার, কেন অন্তত রাত্রিবেলাটুকু এই রাস্তাগুলোয় যানবাহন চলাচল নিষিদ্ধ করা হচ্ছে না, এমন সব প্রশ্ন তুলেই সরব হয়েছেন তাঁরা। সত্যিই তো। একে তো আমরা জঙ্গল কেটেকুটে সাফ করে, বন্যপ্রাণীদের মেরেধরে পৃথিবীটাকে যথেষ্ট বিচ্ছিরি করে তুলেইছি। যে একটুখানি জায়গা শুধু ওদের জন্য আলাদা করে রাখা, সেখানেও গিয়ে ওদের বিরক্ত না করলেই নয়?

বিশ্ব জুড়ে ধ়রপাক়ড়, ৪০০০ সরীসৃপ উদ্ধার

এর আগে কোনওদিন শুনেছিলে কি, পৃথিবীর ২২টি দেশে একসঙ্গে ধরপাকড়ে নেমেছে পুলিশ? তাও আবার এত আয়োজনের সবটা কিনা হিলহিলে, সরু-মোটা, ছোট-বড় সরীসৃপ ধরতে? কিন্তু ভেবে দেখো, হতে পারে ওরা হিলহিলে, ল্যাকপেকে, ঠান্ডা এবং বিষাক্ত, তা বলে ওদের কি প্রয়োজন নেই আমাদের প্রকৃতিতে! তা নইলে কি আর এমনি-এমনি প্রকৃতি তৈরি করেছিল প্রাণীগুলোকে? আর যদি বা তোমার-আমার খালি চোখে ওদের কোনও প্রয়োজন ধরাও না পড়ে, তা বলে ওদের মেরে ফেলা বা আটকে রাখা তো ঠিক নয় কখনওই! সেই অন্যায় আটকাতেই সারা বিশ্বের পুলিশ একজোট হয়ে ইউরোপ, উত্তর আমেরিকা এবং অন্যান্য বহু জায়গায় তল্লাশি চালিয়ে ১২ জনকে গ্রেফতার করেছেন। উদ্ধার করেছেন ৪০০০-এর বেশি জ্যান্ত সরীসৃপ। সারা বিশ্বেই কারণে-অকারণে যেভাবে অকাতরে খুন করা হচ্ছে সরীসৃপদের, সেখানে এমন খবর স্বস্তিদায়ক, নিঃসন্দেহে!