issue_cover
x

x ভূমিকম্পের আভাস

ভূমিকম্পের আগে বনের পশুরা কি তা টের পায়? ২০১১ সালে রাশিয়ার ‘ইন্টারন্যাশনাল কলেজ অফ ইকনমিক্স অ্যান্ড ফাইনান্স’ সঠিক তথ্য প্রমাণের অভাবে বিষয়টিকে নাকচ করে দেয়। তবে পশ্চিম আফ্রিকার জঙ্গলে শঙ্কর আর আলভারেজ কিন্তু ভূমিকম্পের আগে জীবজন্তুদের ঊর্ধ্বশ্বাসে ছুটে পালাতে দেখেছিল। চিনে এখন কুকুরদের দিয়ে ভূমিকম্পের আগাম খবর পাওয়ার চেষ্টা হচ্ছে। ব্রিটেনের অ্যাঙ্গিলা রাস্কিন ইউনিভাসির্টির গবেষক ডঃ রাচেল গ্রান্ট পেরুর ইয়ানাচোগা ন্যাশনাল পার্কে জীবজন্তুদের উপর ভূমিকম্পের প্রভাব নিয়ে পরীক্ষা চালান। জঙ্গলে ক্যামেরা লাগিয়ে জীবজন্তুদের গতিবিধির উপর নজর রাখতে শুরু করেন গবেষকরা। মধ্য পেরুর এই পাহাড়ি বনাঞ্চল অত্যন্ত ভূমিকম্পপ্রবণ এলাকা। এক তীব্র ভূমিকম্পের আগের ছবি পরীক্ষা করে গ্রান্ট জানিয়েছেন, ভূমিকম্পের ২৩ দিন আগে জীবজন্তুদের চলাফেরা খুব কমে যায়। সাতদিন আগে তো একদমই থেমে যায়। সেই সঙ্গে ভূমিকম্পের আগে বায়ুমণ্ডলের পরিবর্তনও তারা বুঝতে পারে। তখন সেই এলাকা ছেড়ে চলে যায় তারা। এবার বিজ্ঞানীরা জীবজন্তুদের এই বোঝার ক্ষমতা বিশ্লেষণ করে, ভূমিকম্পের আগাম খবর পাওয়ার খোঁজ চালাচ্ছেন।

মহাকাশে বছরভর


৩৪০ দিন আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে কাটিয়ে পৃথিবীতে ফিরেছেন india pharmacy দুই মহাকাশচারী স্কট কেলি (বাঁ দিকে)এবং মিখাইল কর্নিয়েনঙ্কো (ডান দিকে)। প্রথম জন মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা ‘নাসা’র কম্যান্ডার। আর দ্বিতীয় জন রাশিয়ার মহাকাশ গবেষণা http://cialisfordailyuse-right.com/ সংস্থা ‘রসকসমস’-এর মহাকাশ বিজ্ঞানী। তাঁদের সঙ্গে রাশিয়ার আর-এক মহাকাশ বিজ্ঞানী সার্গেই ভলকভও পৃথিবীতে ফিরে আসেন ছ’মাস মহাকাশ স্টেশনে কাটিয়ে। আট মাস আগে what does cialis look like কাজ়াখিস্তানে সয়ুজ টি এম এ-১৮ এম মহাকাশযানে করে পৃথিবীর মাটি ছুঁলেন তাঁরা।
২৭ মার্চ, cialis warnings ২০১৫ সালে স্কট এবং মিখাইল আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে পৌঁছে গিয়েছিলেন ‘ওয়ান ইয়ার মিশন’-এর অঙ্গ হিসেবে। মঙ্গলে মানুষসহ অভিযান চালাতে বা দীর্ঘদিনের মহাকাশ অভিযানে মানুষ পাঠানোর আগে, দীর্ঘ সময় এই দুই মহাকাশচারীকে মহাকাশ স্টেশনে রাখার পরিকল্পনা হয়। এই সময়ে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে সতেরো রকমের পরীক্ষা চালান তাঁরা। তিনবার মহাকাশ স্টেশনের বাইরে বেরতে হয় স্কটকে।
আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনটি পৃথিবীপৃষ্ঠ থেকে ৩৫০ থেকে ৪৫০ কিলোমিটার উঁচুতে থাকা এক মহাকাশ গবেষণাগার। যা দিনে সাড়ে পনেরোবার পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করছে। ২০০০ সাল online pharmacy technician training থেকে এই মহাকাশ কেন্দ্রটিতে গবেষণার কাজ চলছে। আমেরিকা, রাশিয়া, কানাডা, জাপান এবং ইউরোপের ১১টি দেশের সম্মিলিত মহাকাশ গবেষণা সংস্থা একসঙ্গে এই স্টেশনটি তৈরি করেছে এবং দেখভাল করেছে।
এযাবৎ দু’শোর বেশি মহাকাশচারী সেখানে গিয়ে কাজ করেছেন আবার পৃথিবীতে ফিরেও এসেছেন। তাঁদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি সময় মহাকাশে কাটিয়ে এলেন স্কট এবং মিখাইল। এখন তাঁদের শারীরিক এবং where to buy viagra online মানসিক পরীক্ষা চলছে। মহাকাশে দীর্ঘদিন থাকার ফলে তাঁদের কী পরিবর্তন হয়েছে সেটা বোঝার জন্য।