issue_cover
x

z মাদাগাস্কারের পাথুরে জঙ্গল

মাদাগাস্কার দেশটির অন্যতম আকর্ষণ হল, ‘সিংগি দে বেমারাহা ন্যাশনাল পার্ক’। স্থানীয় ভাষায় সিংগি কথাটির অর্থ হল, যেখানে খালি পায়ে হাঁটা যায় না। সত্যি-সত্যিই এই জাতীয় উদ্যানে খালি পায়ে হাঁটা কঠিন। কারণ এই উদ্যানের মূল বৈশিষ্ট্য হল, এখানকার চুনাপাথরের খাড়াই টুকরোগুলো ক্ষয়ে গিয়ে নানা আকার নিয়েছে। দূর থেকে এগুলো দেখলে মনে হয়, উদ্যানে জঙ্গল আছে বটে, তবে তা সবুজের নয়, পাথরের। প্রায় ৭০০ বর্গ কিলোমিটার জুড়ে থাকা এই উদ্যান ইউনেস্কো ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইটের মর্যাদাও পেয়েছে।

ঝড়ের নাম

jene-nao-28.7.2016-img2সম্প্রতি ভারতবর্ষে তাণ্ডব করে গেল ক্রান্তীয় ঘূর্ণিঝড় হুদ হুদ। নাম শুনে অনেকেই ভেবেছ, এ আবার কী? হুদ হুদ হল হুপো পাখির নাম, যা ইজ়রায়েলের জাতীয় পাখি । এখন প্রশ্ন হল এমন ভয়ঙ্কর যে ঝড়, তার নামকরণ করার কারণ কী? আসলে বিজ্ঞানীরা ঝড়ের এমন নাম দেন, যাতে একই এলাকায় থাকা একাধিক ঝড়কে আলাদা-আলাদা করে চিহ্নিত করা যায়। তা ছাড়া, নাম দেওয়া হলে ঝড়ের আগাম সতর্কবার্তা, বা পরের উদ্ধারকাজেও অনেক সুবিধে হয়। ঝড়ের নাম দেয় কারা? সারা পৃথিবীর দেশগুলো নিজেদের অঞ্চলের ঝড়ের নাম ঠিক করে। এর জন্য আগে থেকে একটা তালিকাও তৈরি করে রাখা থাকে। যখনই কোনও ঝড় ধেয়ে আসে, সেই তালিকা থেকে নামটি ব্যবহার করা হয়। পরবর্তীকালে যে ঝড় আসতে পারে, সেগুলো হল প্রিয়া আর কোমেন। এগুলোর নাম দিয়েছে যথাক্রমে শ্রীলঙ্কা ও তাইল্যান্ড।