issue_cover
x
About Us

    abp1

    ছোটদের জন্য সবচেয়ে জনপ্রিয় বাংলা ম্যাগাজিন আনন্দমেলা। শুধু ছোটরাই নয়, সব বয়সিরাই আনন্দমেলা পড়তে ভালবাসেন। বহু বাঙালির সারা জীবনের সঙ্গীও আনন্দমেলা। বিজ্ঞান থেকে খেলাধুলো, গল্প থেকে কমিক্স, অ্যাডভেঞ্চার থেকে অ্যাস্ট্রোনমি শিশুদের মনের সব কৌতূহলই মেটায় আনন্দমেলা।

    যদিও এই পত্রিকার জন্ম ১৯৭৫ সালের এপ্রিলে। তবু এর উত্‌স খুঁজতে হলে যেতে হবে আনন্দবাজার পত্রিকার রবিবাসরীয় বিভাগে। সেখানে ১৯৪০ সাল থেকেই ছোটদের বিভাগটির নাম ‘আনন্দমেলা’। সেই ‘আনন্দমেলা’র জনপ্রিয়তাই ‘আনন্দমেলা’ পত্রিকা প্রকাশের মূল অনুপ্রেরণা। বিখ্যাত চলচ্চিত্র পরিচালক সত্যজিত্‌ রায় সেই আমলের নামকরা গ্রাফিক ডিজাইনারও ছিলেন। তিনি এই পত্রিকার মাস্টহেডের ডিজাইনটা করেছিলেন।
    আনন্দমেলার বিষয়সূচির উপর চোখ বোলালে দেখা যায়, সেখানে উপন্যাস, ছোটগল্প, কবিতা, কমিক্স, খেলাধুলো, বিজ্ঞান, শব্দসন্ধান, ধাঁধা, ভ্রমণ, কী নেই! এই পত্রিকার জন্য কলম ধরেছেন সত্যজিত্‌ রায়, সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়, শীর্ষেন্দু মুখোপাধ্যায়ের মতো খ্যাতনামা সাহিত্যিকরা। সত্যজিত্‌ রায়ের কিংবদন্তিসম চরিত্র ‘প্রফেসার শঙ্কু’, প্রেমেন্দ্র মিত্রর ‘ঘনাদা’র মতো চরিত্রদের নিয়ে গল্প, উপন্যাস এই পত্রিকায় প্রকাশিত হওয়ার পরই পাঠক মহলে হইচই পড়ে গিয়েছিল। এ ছাড়াও রয়েছে সুনীল গঙ্গোপাধ্যায়ের ‘কাকাবাবু’, সমরেশ বসুর ‘গোগোল’, বিমল করের ‘কিকিরা’, সমরেশ মজুমদারের ‘অর্জুন’, মতি নন্দীর ‘কলাবতী’র মতো চরিত্ররা।

    আনন্দমেলার জন্য শরদিন্দু বন্দ্যোপাধ্যায় লিখেছিলেন সদাশিবের গল্পগুলো। আর এই পত্রিকায় দীর্ঘদিন ধরে প্রকাশিত ‘রোভার্সের রয়’ কমিক্সটিও রীতিমতো চমকে দিয়েছিল পাঠকদের। ২০০৩ সালের জুলাই মাসে নতুন চেহারায় প্রকাশিত হয়েছিল মাসিক আনন্দমেলা।

    আনন্দমেলায় প্রথম শিশুদের জন্য সম্পূর্ণ রঙিন পত্রিকা। এই পত্রিকাতেই প্রথম ‘টিনটিন’ এবং ‘অ্যাস্টেরিক্স’ কমিক্সের বাংলা অনুবাদ করা হয়েছিল, যা রীতিমতো সাড়া ফেলে দিয়েছিল ছোটদের মধ্যে।

    এই পত্রিকার সার্কুলেশন: ৪৮, ৬৪৩ (অডিট বুরো অফ সার্কুলেশন জুলাই-ডিসেম্বর ’০৮)

    পাঠকসংখ্যা: ৪, ৭৭,০০০ (ন্যাশনাল রিডারশিপ সার্ভে ২০০৬)