Author Archives: sayak mitra

ক্রিকেটে এবার চালু হবে বাধ্যতামূলক ‘নেক গার্ড’

ফিল হিউজ়ের কথা মনে আছে? সেই যে তরুণ ক্রিকেটার ২০১৪ সালে ঘাড়ে বাউন্সার বলের আঘাতে মারা গিয়েছিলেন…

চারটি পদক রাজ্যবর্ধন পুত্রের
প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী এবং অলিম্পিক্‌সে রৌপ্যপদকজয়ী রাজ্যবর্ধন সিংহ রাঠোরের পুত্র মানবাদিত্য সিংহ রাঠোর ১৮তম রাজস্থান স্টেট ওপেন শুটিং চ্যাম্পিয়নশিপে চারটি পদক পেলেন

চারটি পদক রাজ্যবর্ধন পুত্রের

প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী এবং অলিম্পিক্‌সে রৌপ্যপদকজয়ী রাজ্যবর্ধন সিংহ রাঠোরের পুত্র মানবাদিত্য সিংহ রাঠোর ১৮তম রাজস্থান স্টেট ওপেন শুটিং চ্যাম্পিয়নশিপে চারটি পদক পেলেন। তার মধ্যে তিনটি স্বর্ণপদক এবং একটি রৌপ্যপদক। সিঙ্গল ট্র্যাপ এবং ডাবল ট্র্যাপ, দু’ধরনের ইভেন্টেই পদক জিতেছেন তিনি। ২০০৪ সালে আথেন্স অলিম্পিক্‌সে ডাবল ট্র্যাপ ইভেন্টে রুপো পেয়েছিলেন তাঁর বাবা রাজ্যবর্ধন সিংহ রাঠোর। সবে কেরিয়ার শুরু করেছেন মানবাদিত্য। তাঁর থেকেও ভবিষ্যতে ভারত কোনও পদক পায় কিনা, সেটাই এখন দেখার।

blank331

ক্রিকেটে এবার চালু হবে বাধ্যতামূলক ‘নেক গার্ড’

ফিল হিউজ়ের কথা মনে আছে? সেই যে তরুণ ক্রিকেটার ২০১৪ সালে ঘাড়ে বাউন্সার বলের আঘাতে মারা গিয়েছিলেন। অস্ট্রেলিয়ার প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটের সেই মর্মান্তিক দুর্ঘটনার কথা আবার সকলের মনে পড়ে গেল কয়েকদিন আগে অ্যাসেজ সিরিজ়ের দ্বিতীয় টেস্টের সময়, যখন ইংল্যান্ডের পেসার জোফ্রা আর্চারের বাউন্সার এসে লাগে স্টিভ স্মিথের ঘাড়ে। কিছুক্ষণের জন্য মাঠে শয্যাশায়ী হয়ে গেলেও বড় কোনও অঘটন অবশ্য ঘটেনি। চোট পুরোপুরি সারিয়ে তোলার জন্য তৃতীয় ম্যাচ থেকে নিজেকে সরিয়ে নিয়েছেন স্মিথ।
কিন্তু, দ্বিতীয়বার এই ঘটনার পর নড়েচড়ে বসেছে অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেট কর্তৃপক্ষ। খুব তাড়াতাড়িই হেলমেটের সঙ্গে একটি বিশেষ ‘নেক গার্ড’ বাধ্যতামূলক করা হচ্ছে। পেস, মিডিয়াম পেসের আক্রমণের মুখে আর খালি মাথায়, নেক গার্ড ছাড়া দাঁড়াতে দেওয়া হবে না ব্যাটসম্যানদের। হেলমেট প্রস্তুতকারক সংস্থাগুলোকেও এই মর্মে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

blank331

আফ্রিকার সর্বোচ্চ শৃঙ্গে পুণের ন’বছরের ছেলে

current-affair-big-img
গত ৩১ জুলাই, মাত্র ন’বছর বয়সে আফ্রিকার সর্বোচ্চ শৃঙ্গ জয় করল পুণের ছেলে অদ্বৈত ভারতিয়া। তানজানিয়ার মাউন্ট কিলিমাঞ্জারো আফ্রিকা মহাদেশের সবচেয়ে উঁচু শৃঙ্গ, সমুদ্রতল থেকে যার উচ্চতা পাঁচ হাজার ৮৯৫ মিটার। ওই শৃঙ্গে পৌঁছতে অদ্বৈতর সময় লেগেছে সাতদিন।

বলাই বাহুল্য, কাজটা সোজা ছিল না। অবিশ্বাস্য এই কীর্তি স্থাপনের আগে প্রায় দু’মাস নানা প্রশিক্ষণের মধ্যে দিয়ে যেতে হয়েছে অদ্বৈতকে। ঘণ্টাখানেক সাঁতার কাটার পাশাপাশি কার্ডিয়োভাস্কুলার ট্রেনিংয়ের জন্য ক্রিকেট, ফুটবল এবং টেনিসও খেলত সে। প্রতিদিন নাকি ১০০ তলা সিঁড়ি ভেঙে উঠত একরত্তি ছেলে। শুনলে অবাক হবে, এর আগে মাত্র ছ’বছর বয়সেই অদ্বৈত মাউন্ট এভারেস্টের বেস ক্যাম্প পর্যন্ত পৌঁছে গিয়েছিল। এবার কিলিমাঞ্জারো জয়ে তার সঙ্গী ছিলেন অভিযানের নেতা, সমীর পাঠান। ছিলেন অদ্বৈতর মা, পায়েল ভারতিয়া-ও। তবে পাহাড়ের প্রতিকূল আবহাওয়ার সঙ্গে মানিয়ে নিতে না-পারায় শেষমেশ পায়েল অদ্বৈতর সঙ্গে কিলিমাঞ্জারোর শীর্ষ ছুঁতে পারেননি।

এভারেস্ট আর কিলিমাঞ্জারোর পর এবার অদ্বৈতর লক্ষ্য, ইউরোপের এলব্রুস পাহাড়। সংবাদমাধ্যমকে সে জানিয়েছে, ‘‘এবারের ট্রেকটা খুব কঠিন এবং একইসঙ্গে খুব মজার ছিল। এভারেস্টের বেস ক্যাম্পে যাওয়ার সময় আমরা কাঠের বাড়িতে থাকতাম। কিন্তু কিলিমাঞ্জারোয় ট্রেক করতে গিয়ে তাঁবুতে থাকতে হয়েছে। ফলে খোলামেলা জায়গায় বরফটরফের মধ্যে থাকতে খুব ভাল লেগেছে।’’

ক্যানসার নিরাময়ে কলকাতার ছেলে

current-affair02

কলকাতার ছেলে শ্রেয়ান চৌধুরী সেন্ট জেমস স্কুল থেকে লেখাপড়া করে আমেরিকা গিয়েছিলেন উচ্চশিক্ষার জন্য। কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে বায়োলজিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর ট্যাল ডানিনো এবং মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর নিকোলাস আরাপাইয়ার তত্ত্বাবধানে শ্রেয়ন গবেষণায় নিযুক্ত ছিলেন। ক্যানসার নিরাময়ের সেই গবেষণাতেই তাঁরা পেয়েছেন অভাবনীয় সাফল্য। আমাদের পরিবেশে যত ব্যাক্টেরিয়া আছে, তাদের মধ্যে কিছু আমাদের উপকারেও লাগে, জান নিশ্চয়ই? শ্রেয়নরা এমন বুদ্ধি করেছেন যাতে অমন কিছু নিরীহ ব্যাক্টেরিয়ার সঙ্গে একটি ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র অণুকে জুড়ে দিয়ে ব্যাক্টেরিয়াদের ক্যানসারে আক্রান্ত কোষে পাঠানো যায়। একবার সেখানে পৌঁছে গিয়ে ব্যাক্টেরিয়াদের সংখ্যা ক্রমশ বাড়তে থাকলে একসময় ওই ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র অণু ভেঙে যায়। ক্যানসার যেখানে বাসা বেঁধেছে, সেখানে এতক্ষণ রুগির দেহের নিজস্ব রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা কাজ করতে পারছিল না। কিন্তু বাইরে থেকে ব্যাক্টেরিয়ার সঙ্গে পাঠানো ওই অণু ভেঙে গেলে তখন তার প্ররোচনায়, আমাদের দেহের নিজস্ব প্রতিরোধ ব্যবস্থাই আক্রমণ করে ক্যানসারে আক্রান্ত কোষকে। শ্রেয়নরা আপাতত ইঁদুরের উপর পরীক্ষা করে সাফল্য পেয়েছেন। মানুষের উপর পরীক্ষা এখনও বাকি। ক্যানসারের চিকিৎসা আজ সম্ভব হলেও তার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় রুগির নানা রকম অসুবিধে হয়ে থাকে। শ্রেয়নদের পরীক্ষা সফল হলে অমন কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার দুশ্চিন্তাও আর থাকবে না। ফলে সব মিলিয়ে তাঁদের এই পরীক্ষা যে ক্যানসার নিরাময়ে নতুন এক দিগন্তের সন্ধান দিল, সেকথা বলাই যায়।

একটা হাড়ের ওজনই ৪০০ কেজি!

science-songi-1.8.2019-img1 ফ্রান্সের দক্ষিণ-পশ্চিমের একটি গ্রামে খননকাজ চালানোর সময় বিজ্ঞানীরা খুঁজে পেয়েছেন ডায়নোসরের হাড়। তা, সে আর নতুন কী! একসময় সারা পৃথিবী দাপিয়ে বেড়ানো ডায়নোসরের হাড় আজ এই প্রথম খুঁজে পাওয়া গেল, তেমনটা তো নয়। কিন্তু যদি বলি, এবারের এই হাড়টার ওজন ৪০০ কেজি আর তার বয়স মোটামুটি ১৪ কোটি বছর, তা হলে? ডায়নোসর নিয়ে যাঁরা লেখাপড়া করেন, তাঁরা বলছেন, হাড়টা নাকি দৈত্যাকার ডায়নোসর সরোপডের থাই-এর হাড়! কিন্তু কোনও প্রাণীর শুধু থাইয়ের হাড়ের ওজনই ৪০০ কেজি হলে সমস্ত প্রাণীটা দৈর্ঘ্য-প্রস্থ-উচ্চতায় ঠিক কত বড় ছিল, ভাবতে পারছ কি? সরোপডদের (সঙ্গের ছবিতে দেখা যাচ্ছে) হাড় মানুষ এর আগেও খুঁজে পেয়েছে এবং সেগুলো পরীক্ষা করে জানা গিয়েছে, এরা সত্যিই এই পৃথিবীর বুকে হেঁটে বেড়ানো সবচেয়ে ব়ড় চেহারার ডায়নোসর ছিল। সুখের কথা এই যে, এই দৈত্যরা ছিল তৃণভোজী। ফ্রান্সের যে এলাকায় এই খোঁড়াখুঁড়ি চলছিল, ৪০০ কেজির এই হাড় নিয়ে সেখানে স্বাভাবিকভাবেই শুরু হয়েছে ব্যাপক হইচই। এমনকী, ফরাসিদের কেউ-কেউ রীতিমতো উত্তেজিত হয়ে একে সেদেশের অন্যতম একটি জাতীয় সম্পদের তকমাও দিয়ে দিয়েছেন! বিজ্ঞানীরাও উৎফুল্ল, কারণ সদ্য খুঁজে পাওয়া এই হাড়টি পাওয়া গিয়েছে যথেষ্ট অবিকৃত অবস্থায়। যার ফলে এর উপর পরীক্ষানিরীক্ষা চালিয়ে সরোপডদের সম্পর্কে আরও নানা অজানা তথ্য জানা যাবে বলে বিজ্ঞানীমহলের আশা।

বারো বছর পর খেতাব ব্রাজ়িলের, সমস্যায় মেসি

শেষবার ব্রাজ়িল কোপা আমেরিকা জিতেছিল ২০০৭ সালে। মাঝে কেটে গিয়েছে ১২ বছর। এর মধ্যে হয়ে গিয়েছে তিনটি কোপা আমেরিকা টুর্নামেন্ট…

একই সপ্তাহে দু’টি সোনাজয় হিমার
ক্রিকেট বিশ্বকাপ নিয়ে মাতামাতির সময়ে পোল্যান্ডে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক অ্যাথলেটিকস মিটে ২০০ মিটারে সোনা জিতলেন হিমা দাস

একই সপ্তাহে দু’টি সোনাজয় হিমার

ক্রিকেট বিশ্বকাপ নিয়ে মাতামাতির সময়ে পোল্যান্ডে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক অ্যাথলেটিকস মিটে ২০০ মিটারে সোনা জিতলেন হিমা দাস। এক সপ্তাহের মধ্যে এটি তাঁর দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক সোনাজয়। বেশ কয়েকমাস ধরে পিঠের যন্ত্রণায় ভুগছিলেন অসমের এই দৌড়বীর। সেই অবস্থা থেকে ট্র্যাকে নেমে ২৩.৯৭ সেকেন্ডে দৌড় শেষ করেন তিনি। ২৪.০৬ সেকেন্ডে দৌড় শেষ করে এই ইভেন্টে রুপো জেতেন আর এক ভারতীয় ভি কে ভীষ্ম। গত মঙ্গলবারে এই পোল্যান্ডেই মরসুমের প্রথম আন্তর্জাতিক সোনাটি জেতেন হিমা। সেখানে তিনি দৌড় শেষ করেছিলেন ২৩.৬৫ সেকেন্ডে।

বারো বছর পর খেতাব ব্রাজ়িলের, সমস্যায় মেসি

শেষবার ব্রাজ়িল কোপা আমেরিকা জিতেছিল ২০০৭ সালে। মাঝে কেটে গিয়েছে ১২ বছর। এর মধ্যে হয়ে গিয়েছে তিনটি কোপা আমেরিকা টুর্নামেন্ট। কিন্তু ব্রাজ়িলের ভাগ্যে আর শিকে ছেঁড়েনি। এইবছর কোপা আমেরিকায় ফের স্বমহিমায় ফিরল ব্রাজ়িল। ৩-১ গোলে পেরুকে হারিয়ে তারা জিতে নিল নবম কোপা আমেরিকা খেতাব। গত কোপা আমেরিকা টুর্নামেন্টে এই পেরুর কাছে হেরেই গ্রুপ পর্যায় থেকে বিদায় নিতে হয়েছিল তাদের। সেই সঙ্গে একটা রেকর্ডও করল ব্রাজ়িল। আয়োজক দেশ হিসেবে প্রতিটি কোপা আমেরিকা (পাঁচটি) জিতল তারা।

এদিকে এই টুর্নামেন্টকে ঘিরে নতুন সমস্যায় পড়লেন আর্জেন্তিনার তারকা লিওনেল মেসি। সেমি-ফাইনালে ব্রাজ়িলের কাছে হেরে যায় আর্জেন্তিনা। শেষ পর্যন্ত চিলেকে হারিয়ে তৃতীয় স্থানে টুর্নামেন্ট শেষ করে তারা। সেমি-ফাইনালে আর্জেন্তিনার দুটো পেনাল্টির আবেদন নাকচ করেন রেফারি। সেই নিয়ে ক্ষোভে ফেটে পড়েন মেসি। তিনি এমনও দাবি করেন যে, রেফারি এবং কোপা আমেরিকা আয়োজক সংস্থা ‘কনমেবল’ ব্রাজ়িলের প্রতি পক্ষপাতিত্ব করেছে। প্রতিবাদে পদকও প্রত্যাখ্যান করেন মেসিসহ গোটা আর্জেন্তিনা দল। ‘কনমেবল’ অবশ্য এই ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়েছে। তাঁদের মতে, মেসির আচরণে সংস্থার প্রতি অশ্রদ্ধার ছাপ স্পষ্ট। তাঁরা এতটাই চটেছেন যে, সর্বোচ্চ দু’বছরের জন্য মেসিকে নির্বাসিতও করা হতে পারে।

blank331

ক্যালিফোর্নিয়ায় ভয়াবহ ভূমিকম্প

california_earthquake_img01 গত ২০ বছরে এমন ভয়ানক ভূমিকম্প হয়নি সেখানে। গতকাল স্থানীয় সময় সকাল সাড়ে দশটা নাগাদ আমেরিকার মোহাভি মরুভূমিতে ৬.৪ মাত্রার ভূকম্প অনুভূত হয়। তারই রেশ এসে পড়ে ক্যালিফোর্নিয়ায়। ১৯৯৯ সালের অক্টোবর মাসে শেষবার ৭.১ মাত্রার ভূকম্প হয়েছিল এই এলাকায়। তবে আনন্দের খবর এই যে, এত ভয়ানক ভূমিকম্পের পরও এবার সেখানে ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে অনেকটাই কম। বাড়িঘর হেলে পড়েছে, একটি মাত্র বাড়িতে আগুনও লেগে গিয়েছিল ঠিকই, তবে দমকলকর্মীদের তৎপরতায় সেটি সম্পূর্ণ ভস্মীভূত হয়নি। প্রাণহানির কোনও খবরও এখনও পর্যন্ত নেই। এত তীব্র মাত্রার ভূমিকম্পের পর ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় সাধারণত কম শক্তির একাধিক ছোট কম্পন অনুভূত হয়। স্থানীয় মানুষজন আপাতত সেই আতঙ্কেই ভুগছেন। প্রশাসনিক নির্দেশে আশপাশে জরুরি অবস্থা জারি হয়েছে। আশা করা যাচ্ছে, এই দুর্যোগ সেখানকার মানুষ শিগগিরি সামলে উঠবেন।

ক্যানসার নিরাময়ে কলকাতার ছেলে

current-affair02

কলকাতার ছেলে শ্রেয়ান চৌধুরী সেন্ট জেমস স্কুল থেকে লেখাপড়া করে আমেরিকা গিয়েছিলেন উচ্চশিক্ষার জন্য। কলম্বিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে বায়োলজিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর ট্যাল ডানিনো এবং মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের অ্যাসিস্ট্যান্ট প্রফেসর নিকোলাস আরাপাইয়ার তত্ত্বাবধানে শ্রেয়ন গবেষণায় নিযুক্ত ছিলেন। ক্যানসার নিরাময়ের সেই গবেষণাতেই তাঁরা পেয়েছেন অভাবনীয় সাফল্য। আমাদের পরিবেশে যত ব্যাক্টেরিয়া আছে, তাদের মধ্যে কিছু আমাদের উপকারেও লাগে, জান নিশ্চয়ই? শ্রেয়নরা এমন বুদ্ধি করেছেন যাতে অমন কিছু নিরীহ ব্যাক্টেরিয়ার সঙ্গে একটি ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র অণুকে জুড়ে দিয়ে ব্যাক্টেরিয়াদের ক্যানসারে আক্রান্ত কোষে পাঠানো যায়। একবার সেখানে পৌঁছে গিয়ে ব্যাক্টেরিয়াদের সংখ্যা ক্রমশ বাড়তে থাকলে একসময় ওই ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র অণু ভেঙে যায়। ক্যানসার যেখানে বাসা বেঁধেছে, সেখানে এতক্ষণ রুগির দেহের নিজস্ব রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা কাজ করতে পারছিল না। কিন্তু বাইরে থেকে ব্যাক্টেরিয়ার সঙ্গে পাঠানো ওই অণু ভেঙে গেলে তখন তার প্ররোচনায়, আমাদের দেহের নিজস্ব প্রতিরোধ ব্যবস্থাই আক্রমণ করে ক্যানসারে আক্রান্ত কোষকে। শ্রেয়নরা আপাতত ইঁদুরের উপর পরীক্ষা করে সাফল্য পেয়েছেন। মানুষের উপর পরীক্ষা এখনও বাকি। ক্যানসারের চিকিৎসা আজ সম্ভব হলেও তার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় রুগির নানা রকম অসুবিধে হয়ে থাকে। শ্রেয়নদের পরীক্ষা সফল হলে অমন কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ার দুশ্চিন্তাও আর থাকবে না। ফলে সব মিলিয়ে তাঁদের এই পরীক্ষা যে ক্যানসার নিরাময়ে নতুন এক দিগন্তের সন্ধান দিল, সেকথা বলাই যায়।

sports-home-top

কোপা ফাইনালে মুখোমুখি ব্রাজ়িল এবং পেরু

ফুটবলপাগলদের মধ্যে বিশ্বকাপের চেয়ে কোনও অংশে কম উত্তেজনা তৈরি হয় না কোপা আমেরিকা নিয়ে।

ওঅবসর নিলেন রায়াডু
sports-home-bottom এই নিয়ে দ্বিতীয়বার। যুবরাজ সিংহের পর বিশ্বকাপ চলাকালীন অবসর ঘোষণা করলেন আরও এক ভারতীয় ক্রিকেটার। অম্বাতি রায়াডু।